চাশতের নামাজ পড়ার নিয়ম, কত রাকাত, কখন পড়তে হয়, ফজিলত

chast namaz bangla. chast namaz time in Bangladesh. চাশতের নামাজ পড়ার নিয়ম, কত রাকাত, কখন পড়তে হয়, নামাজ আদায়ের নিয়ম, নামাজের ফজিলত.

chast namaz bangla

চাশ্‌ত দুই-রাক’আত সুন্নত নামাজের নিয়ত সমূহঃ

আরবি-উচ্চারন

نَوَايْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّّهِ تَعَالَى رَكْعَتَىْ صَلَوةِ الضُّحىَ سُنَّةُ رَسُوْلِ اللَّهِ تَعَالَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِيْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

বাংলা-উচ্চারন

নাওয়াইতু আন উসালি্লয়া লিল্লাহি তা’আলা রাকা’আতাই সালাতিল দুহা সুন্নাতু রাছুলিল্লাহি তা’আলা মুতাওয়াজ্জিহান ইলাজিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

বাংলা অর্থ

আমি চাশ্‌তের -দুই-রাক’আত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

চাশত নামাজ এর নিয়ম

আরবি ভাষায় ‘সালাতুদ দোহা’ বলে চাশতের নফল নামাজ বোঝানো হয়। হাদিস শরিফে এর অনেক ফজিলত বর্ণনা করা হয়েছে। দিনের এক তৃতীয়াংশ কেটে যাওয়ার পর চাশতের নামাজের সময় শুরু হয়। সূর্য ঢলে যাওয়া পর্যন্ত তা বাকি থাকে। ঘড়ির হিসেবে গ্রীষ্মকালে সকাল ৯টা থেকে এবং শীতকালে সকাল ১০টা থেকে এ নামাজের সময় শুরু হয়। হাদিস শরিফে এ নামাজকে ‘সালাতুল আওয়াবিন’ বলা হয়েছে। কিন্তু আমাদের প্রচলিত পরিভাষায় মাগরিব নামাজের পরের নফল নামাজকে আমরা আওয়াবিন নামাজ বলে সম্বোধন করি। চাশতের নামাজ কত রাকায়াত- এ বিষয়ে হাদিসে দুই, ছয়, আট এবং বারো রাকায়াতের সংখ্যা উল্লেখ করা হয়েছে। তাই চাশতের নামাজ কমপক্ষে দুই রাকায়াত পড়া আবশ্যক। দুই রাকায়াতের বেশি বারো রাকায়াত পর্যন্ত যত ইচ্ছা পড়তে আপত্তি নেই। মেশকাত শরিফে উল্লেখ করা হয়েছে, হজরত আয়েশা সিদ্দিকা (রাযি.) আট রাকায়াত পড়তেন। তিনি বলতেন, যদি আমার মা-বাবাও কবর থেকে ওঠে চলে আসেন, তবু আমি এ নামাজ ছাড়ব না। সহিহ বোখারি ও মুসলিম শরিফে আছে, হজরত উম্মে হানি (রাযি.) বলেছেন, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) মক্কা বিজয়ের দিন আমার ঘরে এসে চাশতের আট রাকায়াত নামাজ আদায় করেছেন।’

You May Also Like