20+Romantic Bangla premer kobita sms

Top 50 popular and best bangla premer kobita sms poems of all time about love, life and friendship. Every lover should read this 50 classic bangla premer kobita. We have collected those poem here, which is the best romantic bangla kobita. We have collected these poems from the greatest Bangla writer. Although it may vary from person to person. But no one can deny this Bangla kobita list. To celebrate your love anniversary or marriage anniversary you can share Bangla love poem with your loved one.  So, check the Famous bangla premer kobita list from the list below.

Bangla premer kobita sms

In this section, you will find Bangla famous and popular writer like robindronath er premer kobita, nazrul er premer kobita, jibanananda das er premer kobita and many more. If you want to make your girlfriend, wife, boyfriend and husband happy during any special day, share these Bangla love kobita with them. Specially, poem is a great medium to express one’s feelings in a romantic way. For this reason we decorate here all the best Bangla premer choto kobita sms for you. So that you can easily get Bangla sms on the internet.

bangla premer kobita in bangla font

তুই কি আমার দুঃখ হবি?

এই আমি এক উড়নচন্ডী আউলা বাউল

রুখো চুলে পথের ধুলো

চোখের নীচে কালো ছায়া।

সেইখানে তুই রাত বিরেতে স্পর্শ দিবি।

তুই কি আমার দুঃখ হবি?

 

তুই কি আমার শুষ্ক চোখে অশ্রু হবি?

মধ্যরাতে বেজে ওঠা টেলিফোনের ধ্বনি হবি?

তুই কি আমার খাঁ খাঁ দুপুর

নির্জনতা ভেঙে দিয়ে

ডাকপিয়নের নিষ্ঠ হাতে

ক্রমাগত নড়তে থাকা দরজাময় কড়া হবি?

একটি নীলাভ এনভেলাপে পুরে রাখা

কেমন যেন বিষাদ হবি।

 

আমি আর কতোটুকু পারি ?

কতোটুকু দিলে বলো মনে হবে দিয়েছি তোমায়,

আপাতত তাই নাও যতোটুকু তোমাকে মানায়।

ওইটুকু নিয়ে তুমি বড় হও,

বড় হতে হতে কিছু নত হও

নত হতে হতে হবে পৃথক পাহাড়,

মাটি ও মানুষ পাবে, পেয়ে যাবে ধ্রুপদী আকাশ।

আমি আর কতোটুকু পারি ?

এর বেশি পারেনি মানুষ।

bangla romantic premer kobita

বহুক্ষণ মুখোমুখি চুপচাপ, একবার চোখ তুলে সেতু

আবার আলাদা দৃষ্টি, টেবিলে রয়েছে শুয়ে

পুরোনো পত্রিকা

প্যান্টের নিচে চটি, ওপাশে শাড়ির পাড়ে

দুটি পা-ই ঢাকা

এপাশে বোতাম খোলা বুক, একদিন না-কামানো দাড়ি

ওপাশে এলো খোঁপা, ব্লাউজের নীচে কিছু

মসৃণ নগ্নতা

বাইরে পায়ের শব্দ, দূরে কাছে কারা যায়

কারা ফিরে আসে

বাতাস আসেনি আজ, রোদ গেছে বিদেশ ভ্রমণে।

আপাতত প্রকৃতির অনুকারী ওরা দুই মানুষ-মানুষী

দু‘খানি চেয়ারে স্তব্ধ, একজন জ্বলে সিগারেট

অন্যজন ঠোঁটে থেকে হাসিটুকু মুছেও মোছে না

আঙুলে চিকচিকে আংটি, চুলের কিনারে একটু ঘুম

ফের চোখ তুলে কিছু স্তব্ধতার বিনিময়,

সময় ভিখারী হয়ে ঘোরে

অথচ সময়ই জানে, কথা আছে, ঢের কথা আছে।

bangla premer choto kobita

অতন্দ্রিলা,

ঘুমোওনি জানি

তাই চুপি চুপি গাঢ় রাত্রে শুয়ে

বলি, শোনো,

সৌরতারা-ছাওয়া এই বিছানায়

—সূক্ষ্মজাল রাত্রির মশারি—

কত দীর্ঘ দুজনার গেলো সারাদিন,

আলাদা নিশ্বাসে—

এতক্ষণে ছায়া-ছায়া পাশে ছুঁই

কী আশ্চর্য দু-জনে দু-জনা—

অতন্দ্রিলা,

হঠাত্ কখন শুভ্র বিছানায় পড়ে জ্যোত্স্না,

দেখি তুমি নেই ||

 

 

বলো না তোমাকে পেলে কোন মূর্খ অর্থ-পদ চায়

বলো কে চায় তোমাকে ফেলে স্বর্ণসিংহাসন

জয়ের শিরোপা আর খ্যাতির সম্মান,

কে চায় সোনার খনি তোমার বুকের এই স্বর্ণচাঁপা পেলে?

তোমার স্বীকৃতি পেলে কে চায় মঞ্চের মালা

কে চায় তাহলে আর মানপত্র তোমার হাতের চিঠি পেলে,

তোমার স্নেহের ছায়া পেলে বলো কে চায় বৃক্ষের ছায়া

তোমার শুশ্রূষা পেলে কে চায় সুস্থতার ছাড়পত্র বলো,

বলো না তোমাকে পেলে কোন মূর্খ চায় শ্রেষ্ঠ পদ

কে চায় তাহলে বলো স্বীকৃতি বা মিথ্যা সমর্থন,

তোমার প্রশ্রয় পেলে কে চায় লোকের করুণা

বলো কে চায় তোমাকে ফেলে স্বর্ণমুদ্রা কিংবা রাজ্যপাট?

বলো না তোমাকে পেলে কোন মূর্খ অন্য কিছু চায়,

কে আর তোমার বুকে স্থান পেলে অন্যখানে যায়!

bangla kobita in bengali font

 

স্বপ্নে তোকে বাড়ির দিকে এগিয়ে দিতে যাই

স্বপ্নে এসে দাঁড়াই পাড়ার মোড়ে

কখন তুই ফিরবি ভেবে চারিদিকে তাকাই

টান লাগাই তোর বিনুনি ধরে।

স্বপ্নে আমি ভিক্টোরিয়ায় তোর পাশে দাঁড়াই

স্বপ্নে বসি ট্যাক্সিতে তোর পাশে

স্বপ্নে আমি তোর হাত থেকে বাদাম ভাজা খাই

কাঁধ থেকে তোর ওড়না লুটোয় ঘাসে।

তুলতে গেলি – কনুই ছুঁলো হাত

তুলতে গেলি – কাঁধে লাগলো কাঁধ

সরে বসব? আকাশভরা ছাতে

মেঘের পাশে সরে বসল চাঁদ।

ক’টা বাজলো? উঠে পড়লি তুই

সব ঘড়িকে বন্ধ করল কে?

রাগ করবি? হাতটা একটু ছুঁই?

বাড়ির দিকে এগিয়ে দিচ্ছি তোকে…

স্বপ্নে তোকে এগিয়ে দিই যদি

তোর বরের তাতে কি যায় আসে?

সত্যি বলছি, বিশ্বাস করবি না

স্বপ্নে আমার চোখেও জল আসে!

 

 

এর আগে আর কোনোদিন আমি

হইনি এমন মর্মাহত

যেদিন তোমার চোখে প্রথম দেখেছি আমি জল,

অকস্মাৎ মনে হলো নিভে গেলো সব পৃথিবীর আলো

গোলাপবাগান সব হয়ে গেলো রুক্ষ কাঁটাবন।

সত্যি এর আগে আর কোনোদিন আমি

মর্মাহত হইনি এমন

যেদিন প্রথম পথে দেখলাম অনাথ কিশোর এক

ক্ষুধায় কাতর কেঁদে মরে,

তখনই আমার মনে হলো পৃথিবীতে কোথাও

তেমন আর সুখ কিছু নেই

ফুলের দোকানগুলি হয়ে গেছে অস্ত্রের গুদাম।

আমি আর কোনোদিন মর্মাহত হইনি এমন

যেদিন প্রথম দেখি

ইতিহাসের প্রতিটি পৃষ্ঠায় রক্ত লেগে আছে,

যেদিন প্রথম সবুজ বৃক্ষের দিকে চেয়ে দেখলাম

সেখানে লুকিয়ে আছে বিষধর সাপ, নদীর গভীরে

চোখ ফেলে দেখি এই জলে দূষণের বিষ, হাঙর-কুমির

তখনই দুহাতে ঢেকে মুখ বুঝলাম কতোখানি দুঃখী

এই কাছের পৃথিবী।

যেদিন প্রথম আমি আকাশেল দিকে চেয়ে দেখলাম

মেঘে বজ্র, ক্রূর ঘূর্ণিঝড়

অরণ্যে ভীষণ সব পশু, লোকালয়ে খুনী আততায়ী

তখনই আমার মনে হলো পৃথিবীর আলো অস্তমিত।

এর আগে আমি আর কোেেনাদিন মর্মাহত হইনি এমন

যেদিন প্রথম শুনি প্রেমিক অক্লেশে বসিয়েছে ছুরি প্রেমিকার বুকে

তখন বুঝেছি পৃথিবীতে দুঃখ ছাড়া চাষবাস হবে না কিছুই।

এর আগে কোনোদিন এমন হইনি মর্মাহত

যেদিন বৃক্ষের কাছে গিয়ে দেখলাম রক্ত ঝরে বৃক্ষের শরীরে

নদীর নিকটে গিয়ে দেখি নেই তার বুকে এতোটুকু তৃষ্ণারও জল

তখনই বুঝেছি কতোটা নির্দয় হতে পারে এই ভালোবাসার পৃথিবী।

সত্যি এর আগে আর কোনোদিন আমি হইনি এমন মর্মাহত

যেদিন দেখেও তুমি চোখ তুলে ফিরে তাকালে না।

 

 

romantic bangla kobita collection

হাত বাড়ালেই মুঠো ভরে যায় ঋণে

অথচ আমার শস্যের মাঠ ভরা।

রোদ্দুর খুঁজে পাই না কখনো দিনে,

আলোতে ভাসায় রাতের বসুন্ধরা।

টোকা দিলে ঝরে পচা আঙুলের ঘাম,

ধস্ত তখন মগজের মাস্তুল

নাবিকেরা ভোলে নিজেদের ডাক নাম

চোখ জুড়ে ফোটে রক্তজবার ফুল।

ডেকে ওঠো যদি স্মৃতিভেজা ম্লান স্বরে,

উড়াও নীরবে নিভৃত রুমালখানা

পাখিরা ফিরবে পথ চিনে চিনে ঘরে

আমারি কেবল থাকবে না পথ জানা–

টোকা দিলে ঝরে পড়বে পুরনো ধুলো

চোখের কোণায় জমা একফোঁটা জল।

কার্পাস ফেটে বাতাসে ভাসবে তুলো

থাকবে না শুধু নিবেদিত তরুতল

জাগবে না বনভূমির সিথানে চাঁদ

বালির শরীরে সফেদ ফেনার ছোঁয়া

পড়বে না মনে অমীমাংসিত ফাঁদ

অবিকল রবে রয়েছে যেমন শোয়া

হাত বাড়ালেই মুঠো ভরে যায় প্রেমে

অথচ আমার ব্যাপক বিরহভূমি

ছুটে যেতে চাই– পথ যায় পায়ে থেমে

ঢেকে দাও চোখ আঙুলের নখে তুমি।

romantic bangla poem collection

স্নেহসবুজ দিন

তোমার কাছে ঋণ

 

বৃষ্টিভেজা ভোর

মুখ দেখেছি তোর

 

মুখের পাশে আলো

ও মেয়ে তুই ভালো

 

আলোর পাশে আকাশ

আমার দিকে তাকা–

 

তাকাই যদি চোখ

একটি দীঘি হোক

 

যে-দীঘি জ্যো‌ৎস্নায়

হরিণ হয়ে যায়

 

হরিণদের কথা

জানুক নীরবতা–

 

নীরব কোথায় থাকে

জলের বাঁকে বাঁকে

 

জলের দোষ? — নাতো!

হাওয়ায় হাত পাতো!

 

হাওয়ার খেলা? সেকি!

মাটির থেকে দেখি!

 

মাটিরই গুণ? — হবে!

কাছে আসুক তবে!

 

কাছে কোথায়? — দূর!

নদী সমুদ্দুর

 

সমুদ্র তো নোনা

ছুঁয়েও দেখবো না

 

ছুঁতে পারিস নদী–

শুকিয়ে যায় যদি?

 

শুকিয়ে গেলে বালি

বালিতে জল ঢালি

 

সেই জলের ধারা

ভাসিয়ে নেবে পাড়া

 

পাড়ার পরে গ্রাম

বেড়াতে গেছিলাম

 

গ্রামের কাছে কাছে

নদীই শুইয়ে আছে

 

নদীর নিচে সোনা

ঝিকোয় বালুকণা

 

সোনা খুঁজতে এসে

ডুবে মরবি শেষে

 

বেশ, ডুবিয়ে দিক

ভেসে উঠবো ঠিক

 

ভেসে কোথায় যাবো?

নতুন ডানা পাবো

 

নামটি দেবো তার

সোনার ধান, আর

 

বলবোঃ শোন, এই

কষ্ট দিতে নেই

 

আছে নতুন হাওয়া

তোমার কাছে যাওয়া

 

আরো সহজ হবে

কত সহজ হবে

 

ভালোবাসবে তবে? বলো

কবে ভালোবাসবে?

 

Frontier Theme